লিনাক্স: বাঁধাহীন, সুন্দর এক অন্যরকম জগৎ!

লিনাক্সের কথা

https://i1.wp.com/www.ipvanish.com/images/a/vpnsetup/linux.png?w=744&ssl=1

উপরের ছবির পেঙ্গুইনের মতই লিনাক্স চমৎকার। লিনাক্সের জগৎটা এক অন্যরকম মুক্ত জগৎ। যেখানে সবই মুক্ত আর অন্যরকম! উপরের পেঙ্গুইনটা আসলে লিনাক্সপ্রেমীদের অতি আদরের টাক্স। এটাই লিনাক্সের লোগো। এর পেছনেও আছে এক মজার কাহিনী।

লিনাক্সের প্রতিষ্ঠাতা লিনুস টরভাল্ডস। একবার কোথাও বেড়াতে গিয়ে তিনি এক মোটাসোটা, হাশিখুশি, ছোটখাট পেঙ্গুইনকে আদর করছিলেন। কিন্তু পেঙ্গুইনটা যে এতটাই বেরসিক তা কি তিনি জানতেন? হঠাৎই বেরসিক পেঙ্গুইন মহাশয় দিল তাকে কামড়ে! ব্যাস! লিনাক্সের লোগো হয়ে গেল পেঙ্গুইন, খাওয়াদাওয়া শেষ করে শান্তিতে বসে থাকা এক পেঙ্গুইন।

লিনাক্সের জগতের সবচেয়ে বড় বিষয় এর কমিউনিটি। লিনাক্সের কমিউনিটিটা আসলেই অন্যরকম। এখানে সবাই সবাইকে সহযোগিতার জন্য সদা প্রস্তুত।

এ এক অন্য দুনিয়া। পুরো পৃথিবী-ই যেন এখানে উম্মুক্ত! এখানে বিনামূল্যেই পাওয়া যায় প্রয়োজনীয় সব, সব রকম সফটওয়্যার। কোন বাঁধা নেই, সীমানা নেই।

লিনাক্স সুন্দর!

সত্যিই সুন্দর!

লিনাক্স সুন্দর!

লিনাক্স এতটাই সুন্দর!

লিনাক্স সুন্দর, সত্যি বলছি, লিনাক্স এতটাই সুন্দর! উপরের ছবিগুলোর মতই সুন্দর!

সফটওয়্যার

মাইক্রোসফট অফিস বা অ্যাডোবি ফটোশপের মত শত শত ডলারের সব সফটওয়্যার এখানে কিনে নিতে হয় না, লিব্রে অফিস বা গিম্প (GIMP: GNU Image Manipulation Program) এর মত সফটওয়্যারগুলো পাওয়া যায় বিনামূল্যে। এমনকি সোর্সও উম্মুক্ত। যে কেউ মডিফাই করতে পারে নিজের মত। আর এগুলো কাজের দিক দিয়ে কোন অংশেই কম নয়!

ফটো ম্যানিপুলেশনঅফিস

স্বাধীনতা

লিনাক্সে আছে শত শত অসাধারণ সব ওএস, যেগুলো নিয়মিত আপডেট হচ্ছে। এলিমেন্টরী, ডিপিন, উবুন্টু, মিন্ট, মাঞ্জারো, আর্ক, রিমিক্সসহ অসংখ্য ওএস পাবেন লিনাক্সের জগতে। আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী সঠিক ওএস খুঁজে নিতে পারবেন লিনাক্সে!

বেশিরভাগ ওএসেই বিভিন্ন ইন্টারফেস ব্যবহার করা যায়। আর প্রতিটা ইন্টারফেস একে অপরের থেকে সম্পূর্ণরূপে ভিন্ন। এটা উইন্ডোজের থিম কিংবা স্কিন প্যাকের মত নয়! ইন্টারফেসের সাথে চেহারা, প্রি ইন্সটলড অ্যাপ, আইকন, কন্ট্রোলঅ্যাবিলিটি, কাস্টোমাইজেবিলিটি প্রভৃতি এ টু জেড বদলে যাবে। যেমন, উবুন্টুর বেশ কিছু অফিসিয়াল ইন্টারফেস আছে। যেমন, Ubuntu (Unity ইন্টারফেস, সর্বশেষ সংস্করণে Gnome), Xubuntu (XFCE), Lubuntu (LXDE), Kubuntu (KDE), Ubuntu Gnome (Gnome, সর্বশেষ সংস্করণে উবুন্টুতে Gnome ব্যবহার হওয়ায় এটি বাদ পড়েছে),  Ubuntu Mate (Mate) প্রভৃতি।

আনঅফিসিয়াল আরো অনেক ইন্টারফেস ব্যবহার করা যাবে। তারপর পাবেন প্রতিটা ইন্টারফেসের বিভিন্ন থিম।

https://i1.wp.com/2.bp.blogspot.com/-GqveVKiyJPg/U0-cPr1DqUI/AAAAAAAASRo/qe6alekGyIA/s1600/ubuntu14.04-unity.png?resize=592%2C333

Ubuntu (উবুন্টু)

https://i2.wp.com/1.bp.blogspot.com/-tmOCWNXTDdw/Vx_BSuu8FMI/AAAAAAAAFQ0/TcJdhCf93eUMROEpp5odNFdNo3-6jL_9QCLcB/s1600/07%2BDolphin%2BFile%2BManager.jpg?resize=590%2C369&ssl=1

Kubuntu (কুবুন্টু)

https://i1.wp.com/xubuntu.org/wp-content/uploads/2015/02/2871/1604_whisker.png?resize=589%2C369&ssl=1Xubuntu (জুবুন্টু)

https://i1.wp.com/lubuntu.me/wp-content/uploads/2015/06/lubuntu-1024x593.png?resize=594%2C344Lubuntu (লুবুন্টু)

https://i2.wp.com/www.omgubuntu.co.uk/wp-content/uploads/2017/04/gnome-ubuntu-desktop-750x421.jpg?resize=583%2C327

Ubuntu Gnome (উবুন্টু গ্নোম)

https://i0.wp.com/ubuntu-mate.org/gallery/Screenshots/04_DESKTOP.png?resize=590%2C443&ssl=1

Ubuntu Mate (উবুন্টু মাতে)

লিনাক্স কঠিন কিছু নয়!

লিনাক্সকে নিয়ে অনেকেরই ভীতি আছে। কিন্তু সত্যিই, এটা কঠিন কিছুই নয়। এখানে সবকিছু খুব সহজ! বেশির ভাগ লিনাক্স ডিস্ট্রো ইন্সটলের সাথে সাথেই পিসি হয়ে যাবে সম্পূর্ণ প্রস্তুত! ড্রাইভার, সফটওয়্যারের খোঁজে কাহিল হতে হবে না। প্রয়োজনের সবিই আছে প্রি-ইন্সটলড!

অনেকের একটা ভুল ধারণা আছে, এখানে খালি কোডের পর কোড লিখতে হয়। হ্যাঁ, লিনাক্সে রয়েছে টার্মিনালের মত দুর্ধর্ষ এক অস্ত্র। যেখানে কোড লিখে অতি সহজে সব কিছু করা যায়। কিন্তু তার মানে কিন্তু এই নয় যে, লিনাক্স ব্যবহার করতে কোডিং করাই লাগে। লিনাক্সে টার্মিনালে করা যায় এমন প্রায় সবই গ্রাফিকালি করা যায়। কিন্তু টার্মিনাল কাজকে করে সহজ। যেমন ভিএলসি মিডিয়া প্লেয়ার ডাউনলোড করর একাধিক উপায় আছে। ভিএলসির ওয়েবসাইট থেকে ইন্সটল করা যেতে পারে অথবা সফটওয়ার সেন্টার থেকে। কিন্তু সবচেয়ে সহজ উপায় হল সেই টার্মিনাল, শুধু লিখুন sudo apt-get install vlc, ব্যাস! কাজ শেষ!

লিনাক্স চালাতে গিয়ে কিছু না বুঝলে বা যে কোন সমস্যায় কোন চিন্তা নেই! লিনাক্সের রয়েছে সুবিশাল কমিউনিটি, যারা সাহায্যের জন্য সদা প্রস্তুত! অসংখ্য ফোরাম, গ্রুপ সাহায্য করার অপেক্ষায় আছে।

বাংলাদেশে আছে লিনাক্স বাংলাদেশ ফেসবুক গ্রুপ আর লিনাক্স কমিউনিটি ফোরাম। এখানে বিভিন্ন সাহায্য ও তথ্য পাওয়া যায়। তাই লিনাক্স নিয়ে দুশ্চিন্তা নেই একদমই!

You might like

About the Author: Tahmid

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: